যাত্রাবাড়ী সাহায্য চাইতে আসা কিশোরীকে ধর্ষণ করলো পুলিশ কনস্টেবল

জে আর এম নিউজ ডেস্ক– এক ধর্ষকের বিরুদ্ধে প্রতিকার চাইতে গিয়ে পুলিশ কনস্টেবলের হাতেই এক এসএসসি পরীক্ষার্থী ফের ধর্ষণের শিকার হয়েছে বলে অভিযোগ পাওয়া গেছে। অভিযুক্ত পুলিশ কনস্টেবলের নাম বাদল হোসেন। এ ঘটনায় শাহবাগ ও যাত্রাবাড়ী থানায় দু’টি আলাদা মামলা দায়ের করে ওই শিক্ষার্থী।
ন মা–বাবার সঙ্গে ঢাকাতেই থাকে সে। ফেসবুকে জয় ঘোষের সঙ্গে তাঁর পরিচয় হয়। পরে দুজনের মধ্যে ঘনিষ্ঠ যোগাযোগ হয়। গত ৩১ মার্চ রাজধানীর শাহবাগ এলাকার একটি হোটেলে কিশোরীকে ধর্ষণ করেন আসামি জয় ঘোষ। মেয়েটির মোবাইল ফোনে ধর্ষণের দৃশ্য ধারণও করেন ওই আসামি।।

পরে মেয়েটিকে তার মোবাইল ফোন না দিয়ে গুলিস্তান এলাকায় নামিয়ে দেয় ওই যুবক। গুলিস্তানে নেমে ভুক্তভোগী মেয়েটি ভয় পেয়ে পুলিশ কনস্টেবল বাদল হোসেনের কাছে ঘটনা খুলে বলে এবং সহায়তা চায়। বাদল তখন তাকে মোবাইল ফোন উদ্ধারের আশ্বাস দেন এবং বাড়ি পৌঁছে দিতে চান। পরে ওই কিশোরীকে বাড়ি পৌঁছে দেওয়ার কথা বলে বাদল নিয়ে যান যাত্রাবাড়ী এলাকার একটি বাড়িতে। সেখানে তাকে ধর্ষণ করেন বাদল।”

ধর্ষণের ঘটনায় রাজধানীর শাহবাগ থানা ও যাত্রাবাড়ী থানায় পৃথক দুটি ধর্ষণ মামলা হয়েছে। এরপর পুলিশ কনস্টেবল বাদল হোসেন ও জয় ঘোষকে গ্রেফতার করে যাত্রাবাড়ী থানা পুলিশ। তারা এখন কারাগারে আছেন।
শাহবাগ থানার পুলিশ ঢাকার মুখ্য মহানগর হাকিম আদালতকে প্রতিবেদন দিয়ে বলেছে, আসামি জয় ঘোষের স্বভাব-চরিত্র ভালো না। প্রলোভন দেখিয়ে ওই কিশোরীর সঙ্গে সম্পর্ক করেছিলেন তিনি। অপর আসামি বাদল হোসেনও ওই কিশোরীকে ধর্ষণ করেন।

এ বিষয়ে যাত্রাবাড়ী থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) কাজী ওয়াজেদ আলী বলেন, ‘তদন্তে জানা গেছে, যাত্রাবাড়ীর কুতুবখালী এলাকায় এক বাসায় নিয়ে ওই কিশোরীকে ধর্ষণ করে কনস্টেবল বাদল।’
‘কনস্টেবল বাদল পুলিশের প্রটেকশন বিভাগে কর্মরত। কোনো থানায় দায়িত্বরত নয়। বাদল রাজারবাগ পুলিশ লাইন্সে থাকতো। বিভিন্ন ভিভিআইপির নিরাপত্তার দায়িত্বে ছিল সে।’ বলেও জানান পুলিশের এই কর্মকর্তা।

Share and Enjoy !

0Shares
0 0

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *