কিম হত্যা: ‘কৌতুক ঘটাতে’ ৯০ ডলার দেওয়া হয় এক নারীকে

0
201

মিরর বাংলা নিউজ  ডেস্ক: একটি কৌতুককর ঘটনা ঘটানোর জন্য ৪০০ মালয়েশীয় রিঙ্গিত (৯০ ডলার) দেওয়া হয়েছিল সিতি আইসাহ নামের এক নারীকে; উত্তর কোরীয় নেতা কিম জং উনের সৎভাই কিম জং ন্যাম হত্যায় জড়িত সন্দেহে যিনি গ্রেফতার হয়েছিলেন। ১৩ ফেব্রুয়ারি মালয়েশিয়ার কুয়ালা লামপুর বিমানবন্দরে উত্তর কোরীয় নেতা কিম জং উনের সৎ ভাই কিম জং নামকে বিষপ্রয়োগে হত্যা করা হয়। পুলিশ জানিয়েছে, তিনি মালয়েশিয়া থেকে ম্যাকাও যাওয়ার জন্য বিমানবন্দরে দাঁড়িয়ে থাকার সময় দু’জন নারী তার মুখে বিষাক্ত কেমিক্যাল স্প্রে করেন। ন্যাম হত্যার এক সপ্তাহেরও বেশি সময় পর শনিবার সিতি প্রথম সাক্ষাতে মালয়েশিয়ায় ইন্দোনেশিয়ার দূতাবাসের কর্মকর্তাদের সঙ্গে কথা বলেন। ঘটনার বর্ণনায় তিনি জানান, একটি রিয়েলিটি শো’র অংশ হিসাবে কিম জং ন্যামের মুখে কৌতুকচ্ছলে ‘বেবি অয়েল’ এর মত একটি তরল মেখে দিতে বলা হয়েছিল তাকে। এজন্য তাকে দেওয়া হয়েছিল ৯০ ডলার। মালয়েশিয়ার পুলিশ বলছে, ন্যামের মুখে যে তরল মাখানো হয় সেটি ছিল মারাত্মক বিষাক্ত রাসায়নিক ‘ভিএক্স নার্ভ এজেন্ট’। যার কারণে ন্যাম মারা গেছেন।কিন্তু ওই তেলটি যে বিষাক্ত ছিল তা জানতেন না বলে জানিয়েছেন ইন্দোনেশীয় নারী আইসাহ। ইন্দোনেশিয়ার উপ-রাষ্ট্রদূত  আন্দ্রেয়ানাও এরউইন ৩০ মিনিট আইসাহ’র সঙ্গে কথা বলার পর জানান, ‘সে কেবলই বলতে চাইছে, কেউ একজন তাকে তেল মেখে দেওয়ার নাটক করতে বলেছিল। কয়েকজন জাপানি কিংবা কোরিয়ানের সঙ্গে তার দেখা হয়েছিল । তাদেরই একজন ওই কাজ করার জন্য ৪শ’ মালয়েশীয় রিঙ্গিত দেয়… সে (আইসাহ) কেবল এটুকই বলেছে’। তবে এই তেল নেওয়ার ফলে ওই নারীর দেহে কোনও রাসায়নিক বিক্রিয়ার চিহ্ন দেখা যায়নি বলে জানিয়েছেন কর্মকর্তারা। ন্যাম খুনে জড়িত সন্দেহে গ্রেফতার হওয়া আরেক ভিয়েতনামী নারীর সঙ্গেও ভিয়েতনামের কর্মকর্তারা কথা বলেছেন। তবে তারাও কোনও মন্তব্য করেননি। মালয়েশিয়ার পুলিশ প্রধান খালিদ আবু বকর বৃহস্পতিবার জানান, ন্যামের চোখ ও মুখ থেকে সংগ্রহ করা নমুনাটি যে ‘ভিএক্স নার্ভ এজেন্ট’, সে বিষয়ে তাদের বিশেষজ্ঞরা নিশ্চিত হয়েছেন। বুধবার মালয়েশিয়া জানিয়েছেন, উত্তর কোরিয়ার নেতা কিম জং উনের সৎ ভাই ন্যামের হত্যাকাণ্ডের ঘ্টনায় উত্তর কোরিয়ার কুয়ালালামপুর দূতাবাসের দ্বিতীয় সচিব ৪৪ বছর বয়সী হায়ন কওয়াং সোংকে জিজ্ঞাসাবাদ করতে চায় তারা।  আর শনিবার সেলানগর রাজ্য পুলিশের প্রধান আব্দুল সামাহ ম্যাট জানিয়েছেন, এগিয়ে আসার জন্য ওই কূটনীতিককে ‘যৌক্তিক’ সময় দেওয়া হবে। নির্ধারিত সময়ের মধ্যে তিনি সহযোগিতা না করলে পরবর্তী পদক্ষেপ নেবে পুলিশ। সামাহ জানিয়েছেন, উল্লেখিত ব্যক্তি যদি পুলিশকে সহযোগিতা না করেন তাহলে মালয়েশিয়ার আইনানুযায়ী নোটিশ ইস্যু করবে পুলিশ এবং তাকে তদন্তকারী দলের সামনে উপস্থিত হতে ‘বাধ্য’ করবে। সংবাদ সম্মেলনে তিনি বলেন, ‘নোটিশ পেয়েও যদি তিনি উপস্থিত না হন, তখন আমরা আদালত থেকে গ্রেফতারি পরোয়ানার ব্যবস্থা করব এবং পরবর্তী পদক্ষেপ নেব’। সৎ ভাই কিম জং নাম উত্তর কোরীয় নেতা কিম জং উনের চেয়ে বয়সে বড়। একটি দীর্ঘ সময় তিনি দেশের বাইরে ম্যাকাও, চীনের মূল ভূখণ্ড এবং সিঙ্গাপুরে কাটিয়েছেন। উত্তর কোরিয়ায় তার পরিবার যে পরিবারতান্ত্রিক শাসন ব্যবস্থা গড়ে তুলেছে তার প্রকাশ্য সমালোচক ছিলেন কিম নাম। তিনি ২০১২ সালে তার সৎ ভাইয়ের নেতৃত্বের গুণাবলী নিয়েও প্রশ্ন তোলেন। তবে নিজে কখনওই ক্ষমতায় আসার কথা বলেননি। কিম জং নাম এবং কিম জং উন দুজনই সাবেক উত্তর কোরীয় নেতা কিম জং ইলের সন্তান। কিন্তু তাদের জন্ম ভিন্ন ভিন্ন মায়ের গর্ভে। কিম জং নাম তার ফুফা জ্যাং সং থায়েকের ঘনিষ্ঠ ছিলেন বলে মনে করা হয়ে থাকে। ২০১৩ সালে কিম জং উনের নির্দেশে সং থায়েকের মৃত্যুদণ্ড কার্যকর করা হয়।

সূত্র: বাংলাট্রিবিউন

NO COMMENTS

LEAVE A REPLY