জাতিসংঘের সমালোচনায় সুরঞ্জিত

0
190

মিরর বাংলা নিউজ  ডেস্ক: নির্বাচন কমিশন গঠন নিয়ে মতামত দিতে জাতিসংঘের চিঠির কঠোর সমালোচনা করেছেন আওয়ামী লীগের উপদেষ্টা পরিষদের সদস্য সুরঞ্জিত সেনগুপ্ত। জাতিসংঘকে সঠিক পন্থায় কথা বলার পরামর্শ দিয়ে তিনি বলেন, ‘সাংবিধানিক প্রক্রিয়ার ওপর কথা বলার এখতিয়ার তাদের নেই।’ রবিবার সংসদে অনির্ধারিত আলোচনায় আওয়ামী লীগের এই বর্ষীয়ান সাংসদ বলেন, ‘জাতিসংঘ তাদের মতামত দিতে চায়। একটি স্বাধীন, সার্বভৌম রাষ্ট্রের সাংবিধানিক বিষয়ে তাদের সংশ্লিষ্টতা নেই। জাতিসংঘ ইন্টারেস্ট দেখাচ্ছে। সাংবিধানিক প্রক্রিয়ার ওপর কথা বলার এখতিয়ার তাদের নেই। তারা ডিপ্লোম্যাটিক চ্যানেলে কথা বলতে পারে। এ ব্যাপারে সাংবিধানিক পথ ছাড়া অন্য কোনও পন্থায় জাতিকে বিব্রত করা ঠিক হবে না।’ সুরঞ্জিত আরও বলেন, ‘জাতিসংঘের প্রতি আমরা শ্রদ্ধাশীল। তবে তারা সাবজেক্ট টু দ্য কনস্টিটিউশন এর বাইরে কোনও প্রশ্ন তুললে আমরা বিব্রত হবো।’ সার্চ কমিটি নিয়ে বিএনপির প্রতিক্রিয়া নিয়ে সাবেক মন্ত্রী সুরঞ্জিত বলেন, ‘রাষ্ট্রপতি সংবিধানের প্রতি গভীরভাবে শ্রদ্ধাশীল। তিনি সার্চ কমিটি গঠন করেছেন। সেই কমিটিতে স্বাধীন বিচার ব্যবস্থার দু’জন বিচারকও রয়েছেন। আর সাংবিধানিকভাবে শপথ নেওয়া সিএজি ও পিএসসি চেয়ারম্যান আছেন।’ তিনি আরও বলেন, ‘কমিটিতে দু’জন শিক্ষক আছেন। এটা লাল-নীলের বিষয় নয়। তাদের প্রতি মানুষের গভীর শ্রদ্ধা আছে। এই অনুসন্ধান কমিটি প্রকাশ করার পর বিএনপি নেতারা এ নিয়ে প্রশ্ন তুলতে চাচ্ছেন। তারা সংবিধান পড়লে দেখতে পেতেন, রাষ্ট্রপতি এই কমিটি করার পর এ নিয়ে প্রশ্ন তোলার অধিকার কারও নাই।’ বিএনপির উদ্দেশে তিনি বলেন, ‘সাংবিধানিক রাজনীতি করতে গেলে সংবিধান মেনেই করতে হবে। বিএনপি নেতা মওদুদ সাহেব বললেন, কমিটি থেকে ভালো সিদ্ধান্ত পেতে পারি। উনাদের মহাসচিব রিজেক্ট করলেন। রাষ্ট্রপতি কমিটি করে দিয়েছেন। বিএনপি বলতে পারে এই লোক না নিয়ে, ওই লোক নেন। ঘোলা পানিতে মাছ শিকার না করে সাংবিধানিক পথে কাজ করতে হবে। এ নিয়ে অনেক কথা দেশে আর দেশের বাইরে বলেছি। আমাদের সজাগ থাকতে হবে। যে যতো বড় নেতা হোন না কেন, রাষ্ট্রপতির অবস্থান নিয়ে কথা বলতে পারবো না। বিএনপি বরং অনুসন্ধান কমিটিতে তাদের বক্তব্য পেশ করতে পারে।’

সূত্র: বাংলাট্রিবিউন

NO COMMENTS

LEAVE A REPLY