সাম্প্রদায়িক উগ্রবাদীরা ওপরে নিষ্ক্রিয় হলেও ভেতরে সক্রিয়: ওবায়দুল কাদের

0
215

মিরর বাংলা নিউজ  ডেস্ক: আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের বলেছেন, ‘সাম্প্রদায়িক উগ্রবাদীরা ওপরে নিষ্ক্রিয় হলেও ভেতরে সক্রিয় । আবারও একটা বড় ধরনের হামলার প্রস্তুতি হয়তো তারা নিচ্ছে । তাই আমাদের নাকে তেল দিয়ে ঘুমালে চলবে না। আমাদের সতর্ক থাকতে হবে। ’ সেতুমন্ত্রী বলেন,‘পুলিশের অভিযানের ফলে সাম্প্রদায়িক উগ্রবাদীরা দুর্বল হয়ে পড়েছে। এসকল সাম্প্রদায়িক উগ্রবাদীরা দুর্বল এবং নিষ্ক্রিয় হয়ে পড়লেও তলে তলে তারা আরও বড় ধরনের হামলার প্রস্তুতি নিচ্ছে কিনা-সেটা আমরা কি জানি? খণ্ড খণ্ড প্রতিবাদ কিংবা প্রতিরোধ করে লাভ নেই। ’ পবিত্র ঈদে মিলাদুন্নবী উপলক্ষে মঙ্গলবার রাজধানীর সোহরাওয়ার্দী উদ্যানে আয়োজিত জশনে জুলুস ও আন্তর্জাতিক শান্তি মহাসমাবেশে ওবায়দুল কাদের এসব কথা বলেন। অনুষ্ঠানের আয়োজন করে আঞ্জুমানে রহমানিয়া মইনীয়া মাইজভাণ্ডারীয়া। আঞ্জুমানের কেন্দ্রীয় সভাপতি মাওলানা সৈয়দ সাইফুদ্দীন আহমদ আল হাসনী ওয়াল হোসাইনী মাইজভাণ্ডারীর সভাপতিত্বে আরও উপস্থিত ছিলেন  শিল্পমন্ত্রী আমির হোসেন আমু ও মুক্তিযুদ্ধবিষয়ক মন্ত্রী আ ক ম মোজাম্মেল হক। ওবায়দুল কাদের বলেন,‘আজকের সন্ত্রাসী তৎপরতা বৈশ্বিক। আমাদের দেশেও কিছু ঘটেছে। যারা পবিত্র ঈদের দিন সন্ত্রাসী কর্মকাণ্ড করে তারা কখনও ইসলামের বন্ধু হতে পারে না। যারা এ ধরনের ঘটনা ঘটাচ্ছে তারা মুসলমান হলেও ইসলামের লোক হতে পারে না। তারা মুসলিমদের শত্রু।’ দেশে সন্ত্রাসবাদ-জঙ্গিবাদের সমালোচনা করে আওয়ামী লীগ সাধারণ সম্পাদক বলেন, ‘ইসলাম শান্তির ধর্ম। শান্তির শত্রুদের প্রতিহত, প্রতিরোধ এবং পরাজিত করতে হবে। এটা ইসলামের শিক্ষা।’ তিনি বলেন, ‘আমরা বাংলাদেশে শান্তি চাই ও স্থিতি চাই। আমাদের ধর্মের মর্মবাণী মতে আমরা দেশে শান্তি শৃঙ্খলা বজায় রেখেছি। শান্তির যারা শত্রু, সন্ত্রাস করে উগ্রবাদী তৎপরতায় লিপ্ত হয়, তাদের প্রতিরোধ করা আমাদের সকলের নৈতিক দায়িত্ব। ’ আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক বলেন, ‘শেখ হাসিনা পাঁচ ওয়াক্ত নামাজ পড়েন। তাহাজ্জুদ নামাজ পড়েন। তিনি শান্তির পথে আছেন তাই তার মতো শাসক সমগ্র দেশবাসী চান।’ মন্ত্রী ওবায়দুল কাদের বলেন, ‘আমি এখানে লম্বা বক্তৃতা দেবো না। আমি ধর্ম বিষয়ে বিশ্বাস করি এবং পালন করি। আমি পবিত্র হজ পালন করেছি। যদিও আমি নামের আগে হাজি লিখি না, দরকার নাই। এটা আমার কর্তব্য। তার জন্য কি হাজি লিখতে হবে? কিন্তু অনেকেই লেখে।’

সূত্র: বাংলাট্রিবিউন

NO COMMENTS

LEAVE A REPLY