দুই নারী জঙ্গির আত্মহত্যার চেষ্টা

0
246

মিরর বাংলা নিউজ  ডেস্ক: রাজধানীর আজিমপুরে পুলিশের অভিযানের সময় দুই নারী ‘জঙ্গি’ আত্মহত্যার চেষ্টা করেছিল। আর আত্মহত্যার চেষ্টা করতে গিয়েই ওই দুই নারী আহত হয়েছেন।

শনিবার রাত ১১ টা ২০ মিনিটে ঘটনাস্থলে সাংবাদিকদের এ কথা জানান ঢাকা মহানগর পুলিশের অতিরিক্ত কমিশনার সারোয়ার হোসেন।

সারোয়ার হোসেন জানান, আহত তিন নারী ‘জঙ্গি’র মধ্যে একজন পুলিশের গুলিতে আহত হয়েছেন। অন্যরা আত্মহত্যার চেষ্টা করেছেন।

সারোয়ার হোসেন বলেন, ‘গোপন সংবাদের ভিত্তিতে আজকের এ অভিযান। নারায়ণগঞ্জের ঘটনার পর থেকেই আইন শৃঙ্খলা বাহিনীর কাছে তথ্য ছিল রাজধানীর মিরপুর ও পুরানো ঢাকা এলাকায় দুটি জঙ্গি আস্তানা আছে। রূপনগর জঙ্গি আস্তানার ঘটনার পর পুরানো ঢাকায় জঙ্গি আস্তানার খোঁজে পুলিশ গোপনে নিয়মিত বাড়ির মালিকদের কাছ থেকে তথ্য সংগ্রহ করত। এরই ধারাবাহিকতায় শনিবার আজিমপুরে ২০৯/৫ পিলখানা রোডের বাসার বাড়িওয়ালার সন্ধান করতে যায় পুলিশ।’

সারোয়ার হোসেন আরো জানান, ওই বাড়ির দ্বিতীয়তলার দরজার সামনে গিয়ে দরজা খুলতে বললে ভেতরের লোকজন বুঝতে পারে বাইরে পুলিশ। এ সময় ভেতর থেকে তারা গ্রেনেড, গুলি ও মরিচের গুঁড়ো ছুঁড়তে থাকে। তখন ঘটনাস্থলে পুলিশের পাঁচ সদস্য আহত হয়। এরপর স্থানীয় পুলিশের সহযোগিতা নিয়ে ওই বাসায় অভিযান শুরু হয়।

অভিযানের সময় বাড়ির ‘মেইন গেইট’ বন্ধ করে দেওয়া হয়। সারোয়ার হোসেন আরো জানান, গেইট বন্ধ করার আগেই একজন নারী বাসা থেকে বের হয়ে রাস্তায় দৌঁড় দিলে তিনি পুলিশের গুলিতে নিহত হন। আর ভেতরে থাকা নারীরা আত্মহত্যার চেষ্টা করে। গুলি বিনিময়ের সময় আবদুল করিম নামে এক ব্যক্তি নিহত হয়। করিম গুলশানে হামলাকারীদের জন্য বসুন্ধরা আবাসিক এলাকায় বাসা ভাড়া নেয়। করিম নারায়ণগঞ্জে নিহত তামিমের ডান হাত।

সারোয়ার হোসেন আরো জানান, অভিযানের পর বাসা তল্লাশি করে চারটি পিস্তল পাওয়া যায়। এছাড়া একটি ব্যাগে নগদ কিছু টাকা পাওয়া যায়। তবে বাসার মধ্যে খুব একটা জিনিসপত্র ছিল না।

আহত তিন নারীর মধ্যে একজন করিমের স্ত্রী হতে পারে বলে ধারণা করা হচ্ছে। সারোয়ার হোসেন আরো জানান, গত ৩০ আগস্টের দিকে দুই নারী এ বাসা ভাড়া নিতে পারে।

সূত্র: এনটিভি

NO COMMENTS

LEAVE A REPLY