গুলশানে আতঙ্ক,

0
272

মিরর বাংলা নিউজ  ডেস্ক: রাজধানীর গুলশান ১ নম্বরে মঙ্গলবার সকাল থেকে আতঙ্ক সৃষ্টি হয়। এক নম্বর গোলচত্বর এলাকায় সকাল থেকেই অনেক পুলিশ মোতায়েন করা হয়। ওই এলাকার একটি ভবন ঘিরে রেখেছিল আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর সদস্যরা। সকাল সকাল এত পুলিশ দেখে গুলশানবাসী ফের আতঙ্কিত হয়ে পড়েন। তাদের মনে একটাই আতঙ্ক উঁকি দিচ্ছিল, আবারও কী কোনও অপ্রীতিকর ঘটনা ঘটতে চলেছে। অবশেষে সব জল্পনা-কল্পনা আর আতঙ্কের অবসান হলো। জানা গেল ঘিরে রাখা ওই ভবনে কয়েকজন চোর ঢুকেছিল। তবে ভবনের ভেতর কাউকে পাওয়া যায়নি।

ঢাকা মহানগর পুলিশের কূটনৈতিক জোনের ডিসি জসিম উদ্দিন বলেন, ‘গ্রিল কেটে কয়েকজন ওই ভবনের ভেতরে ঢুকেছে খবর পেয়ে পুলিশ ঘেরাও করেছিল। পরে দেখা গেলো চোর চুরি করতে ঢুকেছিল।’

গুলশান ১-এর ৫১ নম্বর ভবন৫১ নম্বর ওই পাঁচ তলা ভবনের দ্বিতীয় ও তৃতীয় তলায় এলজির শোরুম রয়েছে। চতুর্থ ও পঞ্চম তলায় ইউনিরয়্যাল সিকিউরিটি লি. ও নেক্সিম নামে দুটি সিকিউরিটি কোম্পানির অফিস রয়েছে। ভবনের পেছনের জানালার এবং পাঁচতলার গ্রিলকাটা। ধারণা করা হচ্ছে এখান দিয়েই চোর পালিয়েছে।

র‌্যাব-১ এর উপ- অধিনায়ক মেজর আজম বলেছেন, ‘আমরা খবর পেয়ে সকালে ভবনটির চার ও পাঁচতলায় অভিযান চালাই। ভবনের ভেতর কাউকে পাওয়া যায়নি। পেছনের গ্রিলকাটা।’

ভবনের পেছনের জানালার গ্রিল কাটাতিনি আরও বলেন, ‘ধারণা করছি তারা পালিয়েছে। একটি সিকিউরিটি কোম্পানির অফিসের কাগজপত্র এলোমেলো পেয়েছি। এছাড়াও দুটি ব্যাগ পেয়েছি, সেগুলোতে তেমন কিছু নেই।’

ডিএমপির ভারপ্রাপ্ত কমশিনার শাহবুদ্দিন কোরেশি বলেন, ‘কয়েকজন দুর্বৃত্ত এই ভবনে ঢুকেছিল বলে আমরা খবর পেয়ে পুলিশ পাঠায়। পুলিশে এসে পুরো ভবন নিজেদের নিয়ন্ত্রণে নিয়ে নেয় এবং তল্লাশি চালায়। কিন্তু ভবনের ভেতরে কাউকে পাওয়া যায়নি।’ তবে ভবনের পঞ্চম তলায় দুটি  ব্যাগ ও একটি মোবাইল ফোন পাওয়া গেছে বলে তিনি জানান।

 তিনি আরও বলেন, ‘সার্বিক পরিস্থিত বিবেচনা করে মনে হচ্ছে এটা একটা চুরির ঘটনা হতে পারে। কিন্তু পুলিশ আসার আগে দুর্বৃত্তরা জানালার গ্রিল কেটে পালিয়ে গেছে বলে ধারণা করা হচ্ছে।’

সূত্র: বাংলা ট্রিবিউন

NO COMMENTS

LEAVE A REPLY