রাসিক মেয়র এর জামিন আবেদন নাকচ- জেল-হাজতে পাঠানোর নির্দেশ

0
251

মিররবাংলা নিউজ  ডেস্ক:

রাজশাহী সিটি করপোরেশনের কারাবন্দি মেয়র মোহাম্মদ মোসাদ্দেক হোসেন বুলবুল নাশকতার একটি মামলায় জামিন পেয়েছেন । তবে আরেকটি নাশকতা মামলায় তার জামিন আবেদন নাকচ করে জেল-হাজতে পাঠানোর নির্দেশ দেয়া হয়েছে।  বৃহস্পতিবার দুপুরে জামিন মঞ্জুর ও নাকচের পৃথক আদেশ দেন আদালত।

এর আগে সকালে রাজশাহী মহানগর দায়রা জজ আদালতে মেয়র বুলবুলের পক্ষে জামিনের আবেদন করেন বুলবুলের আইনজীবী। এর আগ তাকে রাজশাহী কেন্দ্রীয়  কারাগার থেকে তাকে আদালতে হাজির করা হয়।

পরে শুনানি শেষে বিচারক আলতাফ হোসেন তার জামিন আবেদন মঞ্জুর করেন। তবে দুপুরে রাজশাহী মেট্রোপলিটন ম্যাজিস্ট্রেট আদালত-৩ এর বিচারক বিস্ফোরকের অপর মামলায় তার জামিনের আবেদন নাকচ করেন।

রাসিক মেয়র বুলবুলের আইনজীবী রইসুল ইসলাম জানান, বৃহস্পতিবার সকাল ১১টার দিকে গত বছরের ২৪ জানুয়ারি মহানগরীর মতিহার থানায় দায়ের করা নাশকতার একটি মামলায় মেয়র বুলবুলকে মহানগর দায়রা জজ আদালতে হাজির করে জামিনের আবেদন জানানো হয়। শুনানি শেষে দুপুরে বিচারক আলতাফ হোসেন তার জামিন মঞ্জুর করেন।

তবে গত বছরের ৮ জানুয়ারি বোয়ালিয়া মডেল থানায় দায়ের করা বিস্ফোরক মামলায় রাসিক মেয়র মোহাম্মদ মোসাদ্দেক হোসেন বুলবুলকে রাজশাহী মেট্রোপলিটন ম্যাজিস্ট্রেট আদালত-৩ এ হাজির করানো হয়। শুনানি শেষে বিচারক জাহেদুল ইসলাম তার জামিন আবেদন না মঞ্জুর করেন। পরে তাকে রাজশাহী কেন্দ্রীয় কারাগারে নিয়ে যাওয়া হয়।

এর আগে ২০১৫ সালের জানুয়ারি থেকে মার্চ পর্যন্ত বিএনপি জোটের অবরোধ-হরতাল চলকালে ৯টি মামলার আসামি হন রাজশাহী সিটি কর্পোরেশনের নির্বাচিত মেয়র মোসাদ্দেক হোসেন বুলবুল। এর মধ্যে ৪টি মামলায় তার বিরুদ্ধে আদালতে অভিযোগপত্র দিয়েছে পুলিশ। এ ৪টি মামলার মধ্যে পুলিশ কনস্টেবল সিদ্ধার্থ হত্যা মামলাও রয়েছে।

তবে সে মামলায় বুলবুল আগে থেকেই জামিনে রয়েছেন। একের পর এক মামলা দায়েরের পর থেকে পলাতক ছিলেন মোসাদ্দেক হোসেন বুলবুল। গত বছরের ৭ মে পলাতক থাকা অবস্থায় তাকে মেয়র পদ থেকে সাময়িক বরখাস্ত করে স্থানীয় সরকার মন্ত্রণালয়।

মন্ত্রণালয়ের এ আদেশের বিরুদ্ধে হাইকোর্টে রিট করেন মোসাদ্দেক হোসেন বুলবুল। গত ২৪ মার্চ হাইকোর্টের আপিল বিভাগ মোসাদ্দেক হোসেন বুলবুলকে মেয়র পদ থেকে সাময়িক বরখাস্তের মন্ত্রণালয়ের নির্দেশ অবৈধ ঘোষণা করেন।

এর আগে ১৩ মার্চ তিনি রাজশাহীর আদালতে আত্মসমর্পন করেন। এর পর থেকেই রাজশাহী কেন্দ্রীয় কারাগারে বন্দি রয়েছেন মেয়র বুলবুল।

NO COMMENTS

LEAVE A REPLY