চারঘাটে নিজের পিস্তুলের গুলিতে দুই মাদক ব্যবসায়ি আহত

0
176

রাজশাহীর চারঘাটে প্রতিপক্ষকে ভয় দেখাতে গিয়ে নিজের পিস্তলের গুলিতে দুই মাদক ব্যবসায়ি গুলিবিদ্ধ হয়ে গুরুতর আহত হয়েছে। বৃহস্পতিবার সকাল সাড়ে ৯টার দিকে উপজেলার রাওথা গ্রামে আব্দুর রহমানের বাড়িতে এ ঘটনা ঘটে। গুলিবিদ্ধ দুইজনকে প্রথমে চারঘাট উপজেলা স্বাস্থ্য কেন্দ্র ও পরে রাজশাহী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে।
গুলিবিদ্ধরা হলেন -চারঘাট উপজেলা সদরের মিয়াপুর গ্রামের কাইকসরুর ছেলে শাহেদ আলী (৩০) এবং একই এলাকার মজিবর রহমানের ছেলে মইদুল ইসলাম (৩৫)।

চারঘাট থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) নিবারণ চন্দ্র বর্মণ প্রত্যক্ষদর্শীদের বরাত দিয়ে জানান, চারঘাটের রাওথা এলাকার মাদক ব্যবসায়ি আফজাল হোসেনের সঙ্গে তার মামা কাঁকড়ামারি গ্রামের বাসিন্দা মাহবুর হোসেনের মাদক ব্যবসার টাকা-পয়সা নিয়ে দ্বন্দ্ব চলে আসছিল। সম্প্রতি তারা একে অপরকে হত্যারও হুমকি দেন। এ নিয়ে দুইজনের সমর্থকদের মধ্যে উত্তেজনা বিরাজ করছিল। বৃহস্পতিবার সকাল সাড়ে ৯টার দিকে আফজাল হোসেন তার সমর্থক উপজেলার মিয়াপুর এলাকার কাইকচরুর ছেলে শাহেদ আলী (৩৫), একই এলাকার মজিবুর রহমানের ছেলে মইদুল ইসলাম (২৫), বাঘার মীরগঞ্জ ভানুকর গ্রামের নুরুল ইসলামের ছেলে মাদক ব্যবসায়ী রিপন আলী (৩২), একই এলাকার সেকেন্দার আলীর ছেলে শামিম হোসেনকে (৩০) নিয়ে চারঘাটের রাওথা গ্রামের আবু তালেবের ছেলে আব্দুর রহমানের বাড়িতে যান। আফজাল হোসেনের মামা মাহবুরের এই বাড়িতে প্রায় যাতায়াত করতেন। তাই তারা এই বাড়িতে তার খোঁজে যান। সেখানেও আফজাল বাড়ির মালিক আব্দুর রহমানকে হুমকি ধামকি দেন। এক পর্যায়ে মাদক ব্যবসায়ী আফজাল একটি পিস্তুল তার সহযোগী মইদুলের হাতে দিয়ে তা ঠিক আছে কিনা পরীক্ষার করতে বলেন। এসময় পিস্তল থেকে একটি গুলি ফসকিয়ে বের হয়ে মইদুলে হাত ভেদ করে পাশে থাকা শাহেদের বুকে বিদ্ধ হয়। পরে আফজালসহ স্থানীয়রা আহত শাহেদ ও মইদুলকে উদ্ধার করে প্রথমে চারঘাট উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নিয়ে যায়। অবস্থা গুরুতর দেখে সেখানে কর্তব্যরত চিকিৎসক তাদের রাজশাহী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে স্থানান্তর করেন।
তিনি আরে বলেন, আহত দুই মাদক ব্যবসায়িকে আটক করা হবে। সেইসঙ্গে অবৈধ ওই পিস্তলটিও উদ্ধার করা হবে।

এদিকে গুলিবিদ্ধ দুই মাদক ব্যবসায়ীকে রাজশাহী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ভর্তির সময় প্রকৃত ঘটনা আড়াল করা হয়। ভর্তি সময় তারা জানায় গ্রামে সালিশ বৈঠক চলছিল। সেখানে দুই গ্রামবাসির মধ্যে সংধর্ষ ও গোলাগুলি হয়েছে। পাশেই দাঁড়িয়ে তারা সালিশ বৈঠক দেখছিল। এ অবস্থায় তারাও গুলিবিদ্ধ হন।

NO COMMENTS

LEAVE A REPLY